রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ৫ ফাল্গুন ১৪২৪
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

কম আলোয় পড়লে কি চোখ নষ্ট হয়?

Published: 2016-08-02 00:00:00

মো. শরিফুল ইসলামঃ অনেককেই বলতে শোনা যায় বা অনেকেরই ধারণা, কম আলোতে পড়লে চোখ নষ্ট হয়ে যায় বা চোখের পাওয়ার কমে যায়।

ধারণাটা আসলে কি সত্যি? এই ধারণার জন্ম সম্ভবত কম আলোয় পড়লে চোখ ব্যথা করে, দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যাওয়া এবং মাথাব্যথা—এই বিষয়গুলো থেকে। পৃথিবীব্যাপী এ নিয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো গবেষণায় প্রমাণিত হয়নি যে কম আলোয় পড়লে চোখ নষ্ট হয় বা পাওয়ার কমে যায়।

রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপতালের চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক হারুন-উর-রশীদ বলেন, ‘অল্প আলোতে পড়লে সাময়িক কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে; যেমন ঝাপসা দেখা, চোখব্যথা, শুষ্ক চোখ, মাথাব্যথা ইত্যাদি। কিন্তু চোখের এককালীন বা স্থায়ী কোনো ক্ষতি হয় না।’

কম আলোতে পড়লে চোখের ফোকাস করতে সমস্যা হয়। চোখের পাতা যদি কম পড়ে, চোখ যদি কুঁচকে থাকে, তবে চোখের পানি কিছুটা শুকিয়ে আসে। একটা সময় পর দেখতে ঝাপসা হতে পারে এবং অস্বস্তি লাগতে পারে। চোখব্যথা ও মাথাব্যথা শুরু হয়ে যায়। কাজেই কম আলোতে পড়ে চোখের বারোটা বাজছে, এই ধারণা মাথায় আসতেই পারে।

কম আলো ও বেশি আলোয় দেখার জন্য চোখের স্নায়ুকোষ আছে। এদের নাম রড কোষ ও কোন কোষ। একেবারে আলোহীন অবস্থায় কিছু দেখা যায় না। কম আলোয় বা আধো অন্ধকারে রেটিনার রড কোষগুলো আমাদের দেখার কাজে সাহায্য করে। অন্ধকারে প্যাঁচা আমাদের চেয়ে ভালো দেখতে পায়, তার একটা কারণ হচ্ছে, তার রেটিনায় অনেক অনেক রড কোষ থাকে। তাই বলে নিশাচর প্যাঁচা কিন্তু কিছুদিন পর অন্ধ হয়ে যায় না।

তবে সাধারণ দেখা আর পড়ার দেখার মধ্যে পার্থক্য আছে। পড়ার সময় অক্ষরের চেহারাগুলো স্পষ্ট হওয়া দরকার। কোনো জিনিসকে ভালোভাবে দেখার জন্যও এটা প্রয়োজন। যা দেখছি বা পড়ছি, তার সীমারেখা খুব পরিষ্কার হওয়া নির্ভর করে আলোর ওপর। আর আলো কম হলে চোখ ‘একোমোডেশান’ নামে চোখের এক বিশেষ ক্ষমতাকে কাজে লাগায়। কম আলোয় পড়লে রেটিনার রড কোষ কাজ করলেই হবে না, প্রয়োজন হবে বেশি একোমোডেশানের। বেশি দিন একটানা একোমোডেশানের ওপর বেশি চাপ পড়লে চোখের অস্থায়ী কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই কম আলোয় বেশি দিন পড়া উচিত নয়।

যখনই আমাদের চারপাশে আলো কমে আসে বা হঠাৎ আলো নিভে যায়, কোন কোষ কাজ করা বন্ধ করে, রড কোষ কাজ করা শুরু করে, এ কাজটায় কিছু সময় লাগে, এ জন্য হঠাৎ আলো নিভে গেলে আবারও কিছু দেখতে আমাদের খানিকটা সময় লেগে যায়। কাজেই রড কোষের কাজই হচ্ছে কম আলোতে কাজ করার জন্য প্রস্তুত থাকা। যদি অল্প আলোতে পড়াশোনা করেন, আপনার রড কোষ কাজ করবে। যেহেতু এই কাজে চোখ অভ্যস্ত নয়, অস্বস্তি লাগবে, হয়তো মাথাব্যথা হবে, কিন্তু চোখের এককালীন কোনো ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই।

তাই বলে বেশি বেশি কম আলোতে কাজ করা বা পড়াটাও অভ্যাসে পরিণত করার কোনো  যুক্তি নেই। শুধু জেনে রাখা ভালো যে দরকারের সময় কম আলোতে পড়া বা জম্পেশ একটা হরর মুভি লাইট নিভিয়ে দেখলে আপনি আপনার চোখের কোনো ক্ষতি করছেন না।

লেখক: চিকিৎসক।

 

 

 

ঢাকা, ২ আগস্ট/ আমার ক্যাম্পাস/ এ এম