শনিবার, ২৬ মে ২০১৮, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

প্রেমিকার জন্য বিমানবন্দরে ১০ দিন অপেক্ষা

Published: 2016-08-03 00:00:00

বিবিসিঃ পরিচয় অনলাইনেই, এরপরই প্রেম। চ্যাটিং ও চুটিয়ে আড্ডায় সময়টাও বেশ কেটে যায়। দেখা করতে গিয়েই বাধে বিপত্তি।

প্রেমের টানে আলেক্সান্ডার পিটার কার্ক (৪১) নেদারল্যান্ডস থেকে চীনে ছুটে যান। সেখানে বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকার কথা ছিল প্রেমিকা ঝাংয়ের। কিন্তু প্রেমিকার দেখা পাননি আলেক্সান্ডার। প্রেমিকার অপেক্ষায় এক দিন-দুদিন নয়, ১০ দিন অপেক্ষা করেন। দেখা নেই ঝাংয়ের। এই সময়ের মধ্যে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, আলেক্সান্ডার পিটার চীনের গণমাধ্যমকে বলেছেন, দুই মাস আগে ঝাংয়ের (২৬) সঙ্গে অনলাইনে তাঁর পরিচয় হয়। এরপরই গড়ে ওঠে প্রেমের সম্পর্ক। ঝাংয়ের সঙ্গে দেখা করতেই আলেক্সান্ডার পিটার উড়ে যান চীনে। হুনান প্রদেশের একটি বিমানবন্দরে নেমেই হতাশ তিনি। কারণ, বিমানবন্দরে থাকার কথা থাকলেও সেখানে নেই প্রেমিকা। কিন্তু আশাহত হননি তিনি। প্রেমিকা আসবে, এই অপেক্ষায় সেখানে কাটিয়ে দেন ১০ দিন।

হুনান টিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরপর ১০ দিন অপেক্ষার কারণে একপর্যায়ে প্রেমিক আলেক্সান্ডার অসুস্থ হয়ে পড়েন। এ অবস্থায় তাঁকে একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
আলেক্সান্ডারের অসুস্থ হওয়ার খবর পেয়ে ওই টিভি চ্যানেলকে ঝাং বলেন, ‘আমি মনে করেছিলাম, আলেক্সান্ডার পিটার অনলাইনে প্রেমের নামে মজা করেছেন। একপর্যায়ে আমাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। কিন্তু পরে আমার মনে হয়েছে, তিনি (পিটার) আমার দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। একদিন আলেক্সান্ডার পিটার আমাকে একটি বিমান টিকিটের ছবি পাঠায়। আমি মনে করেছিলাম, সে আমার সঙ্গে মজা করছে। পরে সে আর যোগাযোগ করেনি।’ 

ঝাং আরও বলেন, আলেক্সান্ডার পিটার যখন বিমানবন্দরে পৌঁছান, তখন তিনি চীনের অপর এক প্রদেশে গিয়ে প্লাস্টিক সার্জারি করাচ্ছিলেন। এ সময় তাঁর ফোনটি বন্ধ ছিল।

এদিকে চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে তা ভাইরাল হয়। এটা নিয়ে চীনের সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ওয়েইবোতে হ্যাশট্যাগ তৈরি হয়েছে। নাম দেওয়া হয়েছে ‘ফরেন ম্যান ওয়েন্ট টু চ্যাঙশা টু মিট হিজ অনলাইন গার্লফ্রেন্ড’। একজন ব্যবহারকারী এতে মন্তব্য করে বলেন, ‘লোকটি আসলে বোকা। কেন একজন মানুষ এমনটা করবে?’ আরেকজন লিখেছেন, ‘লোকটি কি জানেন না যে চীনের সবকিছু ভুয়া?’ অপর এক ব্যবহারকারী লিখেছেন, হয়তো ওই মেয়েটি বিমানবন্দরে গিয়েছিল। আলেক্সান্ডার পিটারকে দেখেছে। তারপর হয়তো ফিরে গিয়েছে।’

তবে বেশ কয়েকজন ব্যবহারকারী আলেক্সান্ডার পিটারের প্রতি সহানুভূতিও দেখিয়েছেন। একজন লিখেছেন, ‘লোকটি তার প্রেমকে সিরিয়াসলি নিয়েছে। এই অনুভূতি নিয়ে খেলা কোরো না।’ ‘এতে চীনের মর্যাদা কতটুকু উন্নত হবে?’ লিখেছেন আরেকজন।

এ সপ্তাহেই দেশে ফিরে যাওয়ার কথা আলেক্সান্ডার পিটারের। তবে অনলাইনে পরিচয় হওয়ার পর প্রেমিকা বনে যাওয়া ঝাংয়ের দেখা না পেয়ে তাঁকে ফিরে যেতে হচ্ছে। 

তবে প্রেমিকা ঝাং বলেছেন, তাঁর প্লাস্টিক সার্জারি সম্পন্ন হলে তিনি আলেক্সান্ডার পিটারের সঙ্গে দেখা করবেন। এই প্রেমের সম্পর্ককে তিনি টিকিয়ে রাখতে চান।

 

 

 

 

ঢাকা, ৩ আগস্ট/ আমার ক্যাম্পাস/ এ এম