শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

শাবিপ্রবির ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি, আটক ৮

শাবিপ্রবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2016-11-27 00:00:00

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় বড় রকমের জালিয়াতি চক্রের সন্ধান পাওয়া গেছে। ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি চেষ্টার ঘটনায় শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের এক কর্মীসহ কমপক্ষে ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হচ্ছে ছাত্রলীগ কর্মী আল আমিন, ভর্তিচ্ছু ৬ পরীক্ষার্থী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী।

প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক  রাশেদ তালুকদার জানান, আটক হয়েছে ৮ জন , সকালে  ৬জন আর পরে ২জন। এর মধ্যে পরীক্ষার্থী ৬ জন, যাদের মধ্যে একজনকে হল থেকে আটক করা হয়েছে। একজন শাবির, দুইজন বাইরের।

আটককৃতদের মধ্যে ১ জন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ইশরাত ইমতিয়াজ হৃদয়।

সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে জালিয়াতির অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি অঞ্জন রায় সমর্থিত নজরুল ইসলামের অনুসারী ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আল আমিনকে শাহপরান হলের ২১০ নম্বর কক্ষ থেকে আটক করলেও জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আখতার হোসেন অস্বীকার করেন।

তবে প্রক্টর অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার বলেন, জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্যে হল থেকে নিয়ে আসা হয়েছে। এখন তদন্ত চলছে। এ মূহুর্তে আমরা তথ্য দিতে চাচ্ছি না।

কোতোয়ালি থানার সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার নুরুল হুদা আশরাফীর জানান, এই চক্র শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি জালিয়াতির চেষ্টা করে আসছিল।  বগুড়া জেলার গুগল নামের একটি ভর্তি কোচিং সেন্টার এ কাজের সাথে জড়িত।

গুগল কোচিং সেন্টার এর সহকারী পরিচালক আবির ওরফে তুহিন ওরফে জিহান। তাদের মধ্যে হৃদয় গুগল কোচিং সেন্টারে নিয়মিত ক্লাস নেয়। অন্যজন শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়েরই শিক্ষার্থী।

 

পরীক্ষায় ব্যবহৃত ক্যালকুলেটরে সংযুক্ত একটি ডিভাইসের মাধ্যমে এই চক্রের সদস্যরা প্রশ্নের উত্তর সরবরাহ করতো। কৌশলে হল থেকে প্রশ্নপত্র ফাঁস করে সেই প্রশ্নের উত্তর পরীক্ষার্থীর ক্যালকুলেটরের ভেতরের ডিভাইসের মাধ্যমে মনিটরে ডিসপ্লে করা হতো।

প্রত্যেক ছাত্রের কাছে তারা ৫-৬ লক্ষ টাকা নেয় এসবের বিনিময়ে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়সহ আরো বেশকিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে সফলতার সাথে এ কাজ সম্পন্ন করেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে তারা পুলিশকে জানায়।

তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা হবে কিনা জানতে চাইলে বিষয়টি বিশ্লেষণ করে মামলা করা হবে বলে জানান ওসি আখতার হোসেন। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, শনিবার শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সকালে এ ইউনিটের ও বিকেলে বি ইউনিটের পরীক্ষা হয়। এ ইউনিটের ৬১৩টি আসনের বিপরীতে ১৮ হাজার ৪৮৭ জন এবং বি ইউনিটে ৯৫০টি আসনের বিপরীতে ৩৫ হাজার ৫৪৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

 

 

 

ঢাকা/জুনেদ/ এইচ আর