শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

চার দেশের মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে বিশ্বব্যাংকের ঋণ অনুমোদন

ডেস্ক রিপোর্ট | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2017-04-07 22:50:09

বাংলাদেশ-ভুটান-ভারত-নেপাল (বিবিআইএন) কাঠামো কার্যকর করতে এবং দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে ঋণ অনুমোদন করেছে বিশ্বব্যাংক। সংস্থাটি ৫০ দশমিক ৭ কোটি ডলার অনুমোদন করেছে যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৪ হাজার ৫৬ কোটি টাকা (এক ডলার সমান ৮০ টাকা ধরে)।

বিশ্বব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দুটি প্রকল্পে এই ঋণ অনুমোদন করেছে সংস্থাটির ওয়াশিংটন অফিস। তবে ঢাকা অফিস এই তথ্য নিশ্চিত করেছে শুক্রবার (৭ এপ্রিল)।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস সূত্রে জানা যায়, অবকাঠামো ও পরিবহন খাতের উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় এই ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে। এতে পরিবহন ও বাণিজ্য সরবরাহের অবকাঠামো আরও যুগোপযোগী হবে বলে মনে করা হচ্ছে। বিভিন্ন সেবা খাত ও বন্দর আধুনিকীকরণে এই ঋণের টাকা খরচ করা হবে।

এ প্রসঙ্গে সংস্থাটির ঢাকা অফিসের প্রধান চিমিয়াও ফান বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে দ্রুত এবং উচ্চতর গুণমানের প্রবৃদ্ধি প্রয়োজন। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের বৃহত্তর অবকাঠামো উন্নয়নে সহায়তা করছে। আন্তঃ-আঞ্চলিক সংযোগ ও বাণিজ্য সরবরাহ বৃদ্ধিতে উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জন সম্ভব। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের অবকাঠামো উন্নয়নে বরাবর সহায়তা করে যাচ্ছে।

‘রিজিওনাল কানেকটিভিটি’ প্রকল্পের আওতায় এই ঋণের টাকা খরচ করা হবে। এতে বাংলাদেশ-ভারত-ভুটান-নেপালের মধ্যে বাণিজ্য বাড়বে। দেশগুলোর মধ্যে দীর্ঘমেয়াদী অবকাঠামো উন্নয়ন, বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম নির্মাণ এবং বাণিজ্য উন্নত করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে।

ভারত, ভুটান এবং নেপালের সঙ্গে যোগাযোগ এবং বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে আঞ্চলিক সংযোগ প্রকল্প-১ বাস্তবায়ন করা হবে। ভোমরা, শেওলা ও রামগড়ের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ স্থলবন্দর আধুনিকীকরণ এবং বেনাপোল স্থলবন্দরে নিরাপত্তার জন্যও প্রয়োজনীয় অবকাঠামোর উন্নয়ন করা হবে। কাস্টমস আধুনিকায়নের মাধ্যমে দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়বে। বাংলাদেশের সীমান্ত পয়েন্টগুলোতে সরবরাহ ও পরিবহন পরিষেবা উন্নত হবে।

 

 

 

ঢাকা/ এইচ আর