বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

কুরিয়ারে ইয়াবা চালানের অভিযোগে চবি কর্মচারী আটক

চবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2017-09-27 19:37:13

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) ইয়াবা চালানকারী সন্দেহে মো. আলমগীর নামে এক কর্মচারীকে আটক করেছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাটহাজারী মডেল থানা।

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের নিচ তলা থেকে আটক করা হয় তাকে। আটককৃত আলমগীর চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী। সে চবির কেন্দ্রীয় প্রেরণ সেল পিয়ন পদে নিযুক্ত রয়েছে। তার গ্রামের বাড়ি কক্সবাজার জেলার মহেশখালীতে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

জানা যায়, সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা থেকে একটি পার্সেল ২৪ সেপ্টম্বর পাঠায় ঢাকার উত্তরা শাখায়। কিন্তু চবি শাখায় কোন স্কেনিং না থাকায় সেই পার্সেলটি স্কেনিং করা হয় নি। তা পরবর্তীতে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ প্রধান অফিসে স্কেনিং করা হলে তখন ইয়াবা পাওয়া যায়।

এদিকে চবি শাখা কুরিয়ার সার্ভিস বন্ধ করে দেয় ২৫ সেপ্টেম্বর সকালে। বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সকল কাজপত্র নিয়ে যায় প্রধান শাখা আগ্রাবাদে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আগ্রাবাদ অফিসের কর্মকর্তারা পুলিশকে খবর দেয়। ঢাকার উত্তরার একটি হোটেল থেকে পুলিশ যার নামে পার্সেল পাঠানো হয় তাকেসহ দুইজনকে আটক করে। তবে তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করে নি পুলিশ।

এ ব্যাপারে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার পরিচালক মো. সালাউদ্দিন জানান, “আমাদের শাখা সাময়িক বন্ধ রাখা হয়েছে। আলমগীর নামে একজন কাস্টমার একটি পার্সেল পাঠিয়েছিল ঢাকার উত্তরা শাখায়। যার মধ্যে ইয়াবা ছিল বলে জানিয়েছেন আমাদের চট্টগ্রাম শাখার অফিস প্রধান। পরে তিনি সকালে এসে আমার এই শাখা বন্ধ রাখতে বলেন। কতদিন বন্ধ রাখতে হবে তা আমাকে জানায় নি। তবে আমার কাছে কুরিয়ারের যেসকল কাগজপত্র এবং দলিলপত্র ছিল তাও নিয়ে গেছে তারা।

তিনি আরো জানান, “ওই কাস্টমার আগেও আমার এই শাখা থেকে পার্সেল পাঠিয়েছিল। আলমগীরকে জিজ্ঞাসা করলে সে জানায় এই পার্সেলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসরের। তবে সে কোনো প্রফেসরের নাম বলে নি। তার উপর বিশ্বাস ছিল বলে আমরা পার্সেলটি তেমন ভালোভাবে চেক করে দেখে নি। তবে এটিতে কি আছে জানতে চাইলে সে বলে বুটিক্সের জিনিস।’

এ ব্যাপারে হাটহাজারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বেলাল উদ্দিন মো.জাহাঙ্গীরের মুঠোফোনে জানান, “চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মচারী কুরিয়ার সার্ভিসে অবৈধ জিনিস পাঠিয়েছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমরা থানায় আনি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।”

 

 

 

ঢাকা/ এম এ কাইয়ূম/ এইচ আর