শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮, ১২ ফাল্গুন ১৪২৪
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

শাবি ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে টেন্ডার ও নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ

শাবিপ্রবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2018-01-02 20:09:28

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফাও খাওয়া, অছাত্রত্ব, টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বানিজ্যসহ আরো নানা অভিযোগ করেছে শাখা ছাত্রলীগের একাংশের কর্মীরা।

মঙ্গলবার দুপুর  ১টায় শাবি প্রেসক্লাবে এক  সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেন ছাত্রলীগের একাংশের কর্মীরা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তারা বলেন,  ২০১৩ সালে শাখা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিনের পড়াশোনা শেষ করেন। তার বিরুদ্ধে ফাও খাওয়া, চুরি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বানিজ্যসহ আরো নানা অভিযোগের পাহাড়। এছাড়া শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান খানের ছাত্রত্ব বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক বাতিল করা হয়েছে। এসময় তারা শাখা ছাত্রলীগের ইমেজ সংকটের নিরসন চেয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আর্কষন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন শাখা ছাত্রলীগের উপমুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক লক্ষণ চন্দ্র বর্মণ,সদস্য কাজী তৌফিকুর রহমান, সদস্য সোয়েব আহমেদ, সদস্য বাছির মিয়া, নজরুল ইসলাম, রাশেদ রায়হান, শাহরিয়ার হুসাইন, দিদার খন্দকার, ইয়ামিন হোসেন, আবু রায়হান, শাফায়েত উল্লাহ, সোহেল মেহেদি, নাইম ইসলাম প্রমুখ ।

এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন বলেন, আমাকে ও ছাত্রলীগ শাবিপ্রবি শাখাকে বিতর্কিত করার জন্য উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে আবু সাইদ ও সাজিদুল ইসলাম সবুজের প্রত্যক্ষ ইন্ধনে কতিপয় পথভ্রষ্ট কর্মী অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে,যারা বিভিন্ন সময় বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিশৃ:ঙ্খলা ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত। অচিরেই এদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অভিযোগের প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সদস্য আবু সাইদ আকন্দ বলেন, সংগঠনের যেকোন পদ প্রতিটি নেতার কাছে আমানত স্বরূপ।সংগঠনের স্বার্থে  প্রতিটি ব্যক্তিরই পদের ওজন রেখে চলা উচিত।দায়িত্ব পালনে ব্যর্থএসব বিতর্কিত ব্যক্তির উচিত নিজ থেকে পদত্যাগ করে সংগঠনকে কলংকমুক্ত করা।ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অভিযোগের প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সদস্য সাজিদুল ইসলাম সবুজ বলেন,এসব বিষয়ে আমি কিছু জানিনা, আমি এম ফিল নিয়ে ব্যস্ত আর যে সকল কর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করেছে তারা তথ্য প্রমান নিয়ে করেছে । তিনি আরো বলেন, তাদের এক জনের পড়াশুনা শেষ আর অন্য জন অছাত্র তাই তাদের পদত্যাগ করা উচিত ।

সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান বলেন, যারা আমার বিরুদ্ধে এই ধরনের অভিযোগ তুলেছে বরং তারাই অতিতে বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যকর্মে লিপ্ত ছিল, যথাযথ কর্তৃপক্ষ এই ব্যাপারে অবগত আছেন, প্রত্যাশা করছি অতি সত্বর এই দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে  কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

 

 

ঢাকা/জুনেদ আহমদ/একে