শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮, ৮ আষাঢ় ১৪২৫
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

সাংবাদিকদের কলমের জোরেই সমাবর্তন করতে পেরেছি: ইবি ভিসি

ইবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2018-01-10 15:43:32

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ সমাবর্তন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করেছে প্রশাসন। এর পেছনে শুরু থেকে ইবি সাংবাদিকদের কলমের জোর ছিল বলে মন্তব্য করেছেন ভিসি ড. রাশিদ আসকারী। মঙ্গলবার সন্ধায় প্রশাসন ভবনের সভাকক্ষে সমাবর্তনোত্তর এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় ভিসি প্রফেসর ড. রশিদ আসকারী বলেন, ‘দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকেই আমরা আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদের থেকে কিছু বিষয়ে মৃদু চাপ অনুভব করছিলাম। তাদের এই চাপ আমাদের উৎসাহ ও সাহস যুগিয়েছে। মূলত তাদের কলমের জোরেই আমরা আমাদের চতুর্থ সমাবর্তন আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছিলাম। আর এই মহাকর্মযজ্ঞকে এগিয়ে নিতে তাদের এই মিষ্টি তাড়া আমাদের সর্বদা সাহস যুগিয়েছে।’

এসময় তার এই বক্তব্যের সাথে সম্মতি জ্ঞাপন করেন প্রো-ভিসি ও ট্রেজারার। তারাও তাদের বক্তব্যে ইবি সাংবাদিকদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ প্রকাশ করেন। আগামী দিনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি সত্যিকারের আর্ন্তজাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়তে সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন তারা।

এদিকে সভায় সাংবাদিকরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা প্রস্তাব করেন। প্রশাসনও তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করেন এবং সফল সমাবর্তন উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মিষ্টিমুখ করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. সেলিম তোহা, প্রক্টর প্রফেসর ড. মো. মাহবুবর রহমান, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ, তথ্য, প্রকাশনা ও জনসংযোগ দপ্তরের উপ-পরিচালক আতাউল হক, ইবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা যুবাইর আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ্ আল ফারুক, ইবি প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসাইন রুদ্র, সাধারণ সম্পাদক আসিফ খানসহ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বিভিন্ন পত্রিকার সাংবাদিকবৃন্দ।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২১ আগস্ট দায়িত্ব গ্রহনের পর ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত ইবিসাস ও ইবি প্রেসক্লাবের সাংবাদিকরা প্রশাসনকে অভিনন্দন জানিয়ে বেশকিছু রোডম্যাপ প্রস্তাব উপস্থাপন করে আসেন। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়কে সেশনজট মুক্ত করা, পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়ন, আবাসিক সমস্যার নিরসন, প্রায় দেড় যুগ ধরে আটকে থাকা সমাবর্তনসহ আরও নানা দিক উঠে আসে। এসময় সাংবাদিকরা উক্ত কর্মগুলি বাস্তবায়নে প্রশাসনকে সর্বাতœক সহযোগিতারও আশ্বাস দিয়ে আসেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সাংবাদিকদের উত্থাপিত প্রস্তাবগুলো সাদরে গ্রহণ করে পরিকল্পনা মাফিক কাজ শরু করেন। ইতোমধ্যেই সেশনজট প্রায় শূন্যোর কোটায় নেমে এসেছে। নির্মিত হচ্ছে আবাসিক হল। আর সাংবাদিকসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রাণের দাবির সফল আয়োজন হিসেবে দেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ সমাবর্তন সম্পন্ন করেছে প্রশাসন।

 

 

 

 

ঢাকা/অনি আতিকুর রহমান/একে