শনিবার, ২৬ মে ২০১৮, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

শীঘ্রই চবি ছাত্রলীগের নতুন কমিটি, পদপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাপ

চবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2018-04-28 22:10:31

শীঘ্রই ঘোষিত হচ্ছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি। কেন্দ্রীয় কমিটি সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে। ইতিমধ্যে কমিটির সভাপতি সাধারন সম্পাদক পদ পেতে কেন্দ্র ও স্থানীয় নেতার কাছে লবিং করছেন পদপ্রত্যাশীরা।

পদপ্রার্থীদের মধ্যে রয়েছে ছাত্রলীগ নেতা দিয়াজ ইরফান ও ছাত্রলীগকর্মী তাপস সরকার হত্যা মামলার আসামী। রয়েছে গ্রুপিং টেন্ডারবাজি ছিনতাই ও ভর্তি বাণিজ্যের অভিযোগ। প্রাথীদের মধ্যে রয়েছেন অছাত্র।

যদিও অভিযুক্তদের কমিটিতে স্থান দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারন সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন।

একই কথা বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের স্থানীয় কর্ণধার নগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দিন এবং আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, ‘যাদের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ নেই এবং যারা বিভিন্ন সময়ে সংগঠনের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদেরকেই বাছাই করা হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ও রানিং ছাত্রদেরকেই প্রাধান্য দেয়া হবে।’

জানা গেছে, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ রয়েছে। এদের মধ্যে একটি নগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাসির উদ্দিন অনুসারী। অন্যটি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী।

ইতিমধ্যেই কমিটির এ শীর্ষ দুটি পদ পেতে দুটি গ্রুপ থেকে ১৪ জন লবিং শুরু করেছেন।

এদের মধ্যে সভাপতি পদে বর্তমান স্থগিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক এইচ এম ফজলে রাব্বী সুজন, সহসভাপতি রেজাউল হক রুবেল, জামান নূর, এনামুল হক আরাফাত, এইচ এম তারিকুল ইসলাম, সুলতান সায়েম, জাহেদ আওয়াল, ফারুক হোসেন এবং মুনতাসির মুন ইতিমধ্যেই লবিং করেছেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

সাধারন সম্পাদক পদে ছাত্রলীগ নেতা আবু তোরাব পরশ, মিজানুর রহমান বিপুল, ইকবাল হোসেন টিপু, , ইমাম উদ্দিন ফয়সাল ফারভেজ, রকিবুল হাসান দিনার ও টিপু চৌধুরী কথা বেশী শোনা যাচ্ছে।

সভাপতি পদপ্রার্থীদের মধ্যে স্থগিত কমিটির সাধারন সম্পাদক ফজলে রাব্বী সুজন আবারো প্রার্থী হয়েছেন। সাধারন সম্পাদক থাকাকালীন তার অনুসারীরা তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তোলেন। তবে কোন অভিযোগেরই নির্ভর যোগ্য প্রমান মেলেনি।

তবে সুজনের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে। আরেক প্রার্থী মুনতাসির মুন । মুন বিশ্ববিদ্যালয় একাকার গ্রুপের নেতা ছিলেন। সম্প্রতি গ্রুপ পরিবর্তন করে এ গ্রুপ থেকে সভাপতি প্রার্থী হয়েছেন।

একই পদ প্রত্যাশী সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এইচ এম তারেকুল ইসলামও রয়েছেন আলোচনায়। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় দর্শন বিভাগের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।

সাবেক অর্থ সম্পাদক এস এম জাহেদুল আউয়ালও পদটি পেতে মরিয়া। তবে তিনি  ছাত্রলীগ কর্মী তাপস হত্যা মামলার তালিকাভূক্ত আসামী বলে জানা গেছে। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কার্যনিবার্হী সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন জেমস এ পদের প্রত্যাশী।

এদিকে ১/১১ এর এক রাজনৈতিক মামলায় দীর্ঘদিন জেল হাজতে থাকা সাবেক সহ-সভাপতি জামান নূরও একই পদের প্রত্যাশী বলে  গুঞ্জন রয়েছে। রাজনীতিতে ত্যাগী এ নেতা ২০০৭-০৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয় হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হলেও বিভিন্ন বেড়াজালে এখন পর্যন্ত চারটি সেমিস্টার শেষ করতে পেরেছেন।

অন্যদিকে সাধারন সম্পাদক পদ পেতে কয়েকজনের বেশ তৎপরতা দেখা গেছে। যার মধ্যে সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আবু তোরাব পরশ অন্যতম। তবে তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা ও অভিযোগ রয়েছে।  তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং থেকে এমবিএ শেষ করেছেন।

একই পদ পেতে সরব রয়েছেন সাবেক উপ-গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপু। বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘শ্লোগান মাস্টার’ হিসেবে খ্যাত টিপু মার্কেটিং বিভাগের এমবিএ শিক্ষার্থী। গত দু বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সবচেয়ে বড় গ্রুপ সিক্সটি নাইনের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে অন্যতম একজন তিনি। সাধারন শিক্ষার্থীদের কাছেও সমান জনপ্রিয়। ফলে তাকে সাধারন সম্পাদক পদে মনোনীত করতে ইতিমধ্যেই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবর হয়েছে সাধারন শিক্ষার্থীরা। আইন বিভাগের রিফাত মামুন তাকে উদ্দেশ্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেন ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬ বছর ধরে যার শ্লোগান শুনেছি তাকে আগামীতে শ্লোগানোর সুযোগ দেয়া হোক।

গুরুত্বপূর্ণ এ পদটি পেতে বেশ আলোচনায় রয়েছেন সাবেক উপ দফতর সম্পাদক মিজানুর রহমান বিপুল। সম্প্রতি তার বিষয়ে ছাত্রদলের সহ-সভাপতি পদে থাকার অভিযোগ উঠলেও তিনি তা অস্বীকার করেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজী বিভাগের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।  তার বিরুদ্ধেও একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

আরেক পদপ্রত্যাশী রকিবুল হাসান দিনার নাট্যকলা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর শেষ করেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন গ্রুপের নেতৃত্বে তিনি নেই।  তবে দিনার বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক নেতা আবুল মনসুর জামশেদের অনুসারী বলে পরিচিত।

সাবেক উপ-সাহিত্য সম্পাদক ইমাম উদ্দিন পারভেজ ফয়সালও সাধারণ সম্পাদক পদটি পেতে দৌড় ঝাপ করছেন।

 

 

 

 

ঢাকা/ আমার ক্যাম্পাস/ চবি প্রতিনিধি/ এ আর