বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫
গুরুত্বপূর্ণ সংবাদ

কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ নেতৃত্বে রাবি ছাত্রলীগ নেতাদের মূল্যায়ন দাবি

রাবি প্রতিনিধি | আমারক্যাম্পাস২৪.কম

Published: 2018-05-07 10:24:20

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের ২৯তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ ও ১২ মে। সম্মেলনের মধ্য দিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ পদগুলোতে নতুন নেতৃত্ব আসবে। ইতোমধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুইজন সাবেক নেতা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। এদিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কমিটির শীর্ষ পদে যোগ্য নেতাদের মূল্যায়নের দাবি করেছেন রাবি ছাত্রলীগের বর্তমান ও সাবেক নেতৃবৃন্দ।

সভাপতি পদের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য মু আতিকুর রহমান সুমন। সাধারণ সম্পাদক পদে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য সাহানুর সাকিল মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। তবে বিশ্ববিদ্যালয় শাখার বর্তমান কমিটির কেউ এখন পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন কিনা জানেন না বলে জানিয়েছেন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। গত ২ এপ্রিল থেকে মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু হয়। গতকাল শুক্রবার মনোনয়নপত্র গ্রহণের শেষ দিন ছিল। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন আজ শনিবার রাত ৮টা পর্যন্ত।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবিরের বিরুদ্ধে লড়াই করে ছাত্ররাজনীতি করতে হয়। অনেক ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ত্যাগের বিনিময়ে আজকের এই রাবি ছাত্রলীগ। এরপরও কেন্দ্রীয় কমিটিতে যথাযথ মূল্যায়ন পাচ্ছেন না। ঢাকার বাইরে রাবি ও চবি দুটো গুরুত্বপূর্ণ ইউনিট। এজন্য কেন্দ্রীয় কমিটিতে রাবি ছাত্রলীগের যোগ্য নেতাদের মূল্যায়ন করা হলে উত্তরবঙ্গে ছাত্রলীগের ছাত্ররাজনীতি চাঙ্গা ও মুজিবীয় আদর্শ বিকশিত হবে। পাশাপাশি অনেক পরিশ্রম করে যারা রাজনীতি করছেন তারা রাজনীতি থেকে কখনও হতাশ ও বিমুখ হবেন না।

রাবি ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৪ সালে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুজ্জামান শিখরকে কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়। এরপর কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ দুই পদে রাবি থেকে কেউ আসেনি। তবে শীর্ষ নেতৃত্বে আসতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অনেক নেতৃবৃন্দ মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন।

সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাহানুর সাকিল বলেন ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতৃত্বে আসার যোগ্যতা ঢাবি কিংবা ঢাকার অবস্থান হতে পারে না। সকল আন্দোলন সংগ্রামে ছাত্রলীগ নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। তাই ছাত্রলীগের রাজনীতি সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে শীর্ষ পদের নেতৃত্বে ঢাকা কেন্দ্রিকতার বাইরে থেকে দিতে হবে। তাহলে দেশে ছাত্রলীগের রাজনীতি চর্চায় সকল ছাত্ররা এগিয়ে আসবে ও আগ্রহী হবে।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সভাপতি ও রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন শফিক বলেন, ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসার যোগ্যতা শুধুমাত্র ঢাবি কিংবা বিশেষ এলাকা হতে পারে না। ছাত্রলীগের নেতৃত্ব সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যোগ্য নেতাদের মধ্য থেকে নির্বাচিত করা প্রয়োজন। বিশেষ করে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিদ্যাপীঠ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের যোগ্য ও ত্যাগী নেতাদের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের জন্য বিবেচনা করা উচিত। কারণ এখানকার ছাত্রনেতারা স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিদের সঙ্গে যুদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার রাজনীতি করে।

 

 

 

ঢাকা/ আমার ক্যাম্পাস/ মাহফুজ মুন্না/ এইচ আর